Sunday, 16 December 2012

বাংলাদেশের বিজয় দিবস




 আজ ১৬ই ডিসেম্বর। বাংলাদেশের বিজয় দিবস।

১৯৭১ সালে পশ্চিম  পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ন’মাস যুদ্ধ করে জিতেছিল  পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ। ভারত সাহায্য করেছিল যুদ্ধে জিততে। ওই সাহায্যটা না করলে বাংলাদেশের   পক্ষে   যুদ্ধে জেতা সম্ভব হত বলে আমার মনে হয় না। বাংলাদেশের জন্ম আমাদের বুঝিয়েছিল, ভারত ভাগ যাঁরা করেছিলেন,  দূরদৃষ্টির  তাঁদের খুব অভাব ছিল। তাঁরা ভেবেছিলেন  ‘মুসলমান মুসলমান ভাই ভাই,   হোক না তারা বাস করছে হাজার মাইল দূরে, হোক না তাদের ভাষা আর সংস্কৃতি  আলাদা, যেহেতু ধর্মটা এক, বিরোধটা হবে না।’ ভুল ভাবনা। ভারত ভাগ হওয়ার  পর পরই বিরোধ শুরু হয়ে গেল। পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী    শোষণ  করতে শুরু করলো পূর্ব পাকিস্তানের মুসলমানদের  । নিজেদের ভাষাও চাপিয়ে দিতে চাইলো। আরবের ধনী মুসলমানরা যেমন এশিয়া বা আফ্রিকার গরীব মুসলমানদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে, মানুষ বলে মনে করে না,  পশ্চিম পাকিস্তানী  শাসকরা ঠিক তেমন করতো, বাঙালিদের মানুষ বলে মনে করতো না।  পূর্ব পাকিস্তান ফসল ফলাতো, খেতো পশ্চিম পাকিস্তান।  পুবের  ব্যবসাটা বাণিজ্যটা ফলটা সুফলটা পশ্চিমের পেটে। এ ক’দিন আর সয়! মুসলমানে মুসলমানে যুদ্ধ হল। শেষে,  বাঙালি  একটা দেশ পেলো। ভীষণ আবেগে দেশটাকে একেবারে ধর্মনিরপেক্ষ,  সমাজতান্ত্রিক, গণতান্ত্রিক ইত্যাদি  চমৎকার শব্দে ভূষিত করলো।  ক’জন মানুষ ওই শব্দগুলোর মানে বুঝতো তখন? এখনই বা কতজন বোঝে? বোঝেনি বলেই  তো চল্লিশ বছরের মধ্যেই দেশটা একটা ছোটখাটো পাকিস্তান হয়ে বসে আছে। ইসলামে থিকথিক করছে দেশ। টুপিতে দাড়িতে, হিজাবে  বোরখায়, মসজিদে মাজারে চারদিক ছেয়ে গেছে। মানুষ সামনে এগোয়,  বাংলাদেশ পিছোলো চল্লিশ বছরে যা পার্থক্য ছিল বাংলাদেশে আর পাকিস্তানে, তার প্রায় সবই ঘুচিয়ে দেওয়া হয়েছে। সমান তালে মৌলবাদের  চাষ হচ্ছে দু’দেশের মাটিতে। বাংলাদেশ মরিয়া হয়ে উঠেছে প্রমাণ করতে, যে,  ‘মুসলমান মুসলমান ভাই ভাই। দ্বিজাতিতত্ত্বের ব্যাপারটা ভুল ছিল না, ঠিকই ছিল’।


দেশের সংবিধান বদলে গেছে। পাকিস্তানি সেনাদের আদেশে উপদেশে  যে বাঙালিরা  বাঙালির গলা কাটতো একাত্তরে,   পাকিস্তান থেকে আলাদা হতে  চায়নি,   দেশ স্বাধীন হওয়ার পর খুব বেশি বছর যায়নি, দেশের তারা মন্ত্রী হয়েছে, দেশ চালিয়েছে। আমার মতো  গণতন্ত্রে সমাজতন্ত্রে সমতায় সততায় বিশ্বাসী একজন লেখককে দেশ থেকে দিব্যি তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে  কিছু ধর্মীয় মৌলবাদীকে খুশি করার জন্য। যারা তাড়ালো, যারা আজও দেশে ঢুকতে দিচ্ছে না আমাকে, সেই রাষ্ট্রনায়িকারা ওপরে যা-ই বলুক,   ভেতরে ভেতরে নিজেরাও কিন্তু  মৌলবাদী কম নয়।

বিজয় উৎসব করার বাংলাদেশের কোনও  প্রয়োজন আছে কি? আমার কিন্তু মনে হয় না।  আসলে ঠিক কিসের বিরুদ্ধে বিজয়? পাকিস্তান আর বাংলাদেশের নীতি আর আদর্শ তো এক! সত্যিকার বিরোধ বলে কি কিছু আছে আর? পাকিস্তানের ওপর নয়, বরং বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষের রাগ একাত্তরের মিত্রশক্তি ভারতের ওপর। বিজয় দিবস করে খামোকাই নিজের সঙ্গে প্রতারণা  না করলেই কি নয়! ১৬ ডিসেম্বরে নয়,   বাংলাদেশ বরং ১৪ই আগস্টে
উৎসব করুক।  পাকিস্তানের জন্মোৎসব করুক ঘটা করে। পাকিস্তানের সঙ্গে মিলে মিশে রীতিমত জাঁকালো উৎসব। মুসলমানের উৎসব।   বিধর্মীদের থেকে মুসলমানদের  আলাদা করার  ঐতিহাসিক উৎসব। বিজয় উৎসব।




দেশ নিয়ে লিখেছিলাম কিছু কবিতা। হা দেশ!



2 comments:

  1. //দেশটাকে একেবারে ধর্মনিরপেক্ষ, সমাজতান্ত্রিক, গণতান্ত্রিক ইত্যাদি চমৎকার শব্দে ভূষিত করলো।\\

    ৭২ এর সংবিধানের মূল নীতিগুলো ছিল গনতন্ত্র,সমাজতন্ত্র,জাতীয়তাবাদ আর ধর্মনিরপেক্ষতা।

    ReplyDelete
  2. কবিতাগুলো শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ...

    ReplyDelete